আওয়ামী লীগে কপাল খুলছে আবুল হোসেনের

উৎপল দাস।।

বহুল আলোচিত পদ্মা সেতু কেলেঙ্কারি থেকে শুধু বাংলাদেশই মুক্ত হয়নি। কানাডার আদালতের রায়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ আবুল হোসেন। দীর্ঘদিন রাজনীতির বাইরে থাকা আবুল হোসেনকে পুরস্কৃত করার চিন্তাভাবনাও শুরু করেছে আওয়ামী লীগ।

দলের হাইকমান্ডের একটি সূত্র পূর্বপশ্চিমকে নিশ্চিত করে বলেছেন, আবুল হোসেনের জন্য আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অথবা প্রেসিডিয়াম সদস্য পদ বিবেচনা করছেন দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে মন্ত্রিসভা রদবদলের সময় তাকে ট্যাকনোকেট মন্ত্রী হিসেবে দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। মন্ত্রীসভায় এবার নতুন নারী মুখের আধিক্য থাকবে। এক্ষেত্রে সংরক্ষিত আসনের নারী এমপিদের নিয়ে ভাবছেন প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে কানাডার আদালতে মামলা করা হয়। দীর্ঘ অনুসন্ধানের পর গত শুক্রবার আদালত পদ্মা সেতু প্রকল্পে কোনো ধরণের দুর্নীতির খোঁজ পায়নি। ফলে সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী আবুল হোসেনকে দায়মুক্তি দেয় আদালত।

পদ্মা সেতুর ওই কেলেঙ্কারির কারণে মন্ত্রীত্ব ও দলীয় রাজনীতি থেকে নির্বাসনে থাকতে হয়েছিল আবুল হোসেনকে। অভিযোগের শুরু থেকেই নিজেকে নির্দোষ দাবি করে আসছিলেন তিনি। কানাডার আদালতের মামলার রায়ের পর ফেসবুক স্ট্যাটাস ও গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন এবং  এ রায়ের ফলে শুধু তিনি নন; বাংলাদেশও নতুন উচ্চতায় উঠেছে বলে দাবি করেন তিনি।

আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আবারো সুযোগ পাওয়ার বিষয়ে তার কাছে জানতে চেয়ে ফোন করলেও এখনই এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেটিই তিনি মাথা পেতে নেবেন বলে জানান।

/ইউডি/

কোন মন্তব্য নেই

মতামত দিন